Tuesday, September 26, 2017
বৃহত্তর লাকসাম ফাউন্ডেশনের বর্ণাঢ্য বনভোজন

হাকিকুল ইসলাম খোকন: পরস্পর সম্প্রীতি আর সহমর্মিতা দিয়ে কমিউনিটিকে এগিয়ে নেওয়ার প্রতিশ্রুতির মধ্যদিয়ে সমাপ্ত হয়েছে প্রবাসের অন্যতম আঞ্চলিক সংগঠন “বৃহত্তর লাকসাম ফাউন্ডেশন ইউএসএ” এর বনভোজন। গত ৯ জুলাই নিউইয়র্কের এফডিআর পার্কে বনভোজনের আয়োজন করেন সংগঠনটি। প্রবাসে কর্মব্যস্ত জীবনে আপনজনদের নিয়ে সময় কাটানোর সহজে ফুসরত মেলেনা। সবাই নিজ নিজ ভূবনে ব্যস্ত। এরমধ্যেই বৃহত্তর লাকসাম ফাউন্ডেশন ইউএসএ আয়োজন করে বার্ষিক বনভোজনের। লাকসাম, নাঙ্গলকোট, মনোহরগঞ্জ, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলাবাসী সহ কমিউনিটির বিপুল সংখ্যক মানুষ অংশ নেয় এতে। সকাল সাড়ে ৮টায় তিনটি বাস ১টি মিনিবাস ছেড়ে যায় পার্কের উদ্দেশ্যে। এছাড়া নিউইয়র্কের পাঁচটি বরোসহ পাশের রাজ্যের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রাইভেট গাড়ীতে অনেকে যোগ দেন বনভোজনে। মূহুর্তে প্রাকৃতিক সৌর্ন্দেয্যে লীলাভূমি এফডিআর পার্ক বৃহত্তর লাকসামবাসীর মিলনমেলায় পরিনত হয়। খবর বাপসনিঊজ:
ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক নূরে আলমের পরিচালনায় উদ্বোধনী পর্ব শুরু হয়। শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন এবিএম হুমায়ন কবির। ত্রিপিটক পাঠ করেন দুলাল চন্দ্র সিংহ। এরপর সকলের উপস্থিতি বেলুন উড়ায়ে বনভোজনের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ সোসাইটির স্টাষ্ট্রিবোর্ড সদস্য ও বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির সাবেক সভাপতি এমদাদুল হক কামাল ও সংগঠনের সভাপতি ও বাংলাদেশ সোসাইটির সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম ভূইঁয়া। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন বনভোজন কমিপির উপদেষ্টা আকতারুজ্জামান, প্রধান সমম্বয়কারী বাবু চিত্তরঞ্জন সিংহ, সমন্বয়কারী খোরশেদ আলম মেম্বার, প্রফেসর সাফায়েত উল্লাহ মজুমদার, বনভোজন উদযাপন কমিটির আহবায়ক আব্দুল জলিল তিতুমীর, উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব রবিউল হাছান, সদস্য কামাল উদ্দিন, কামরুনাহার রিনা, দুলাল চন্দ্র সিংহ, মো: সামসু উদ্দিনসহ কার্যকরী কমিটির সদস্যরা। পরিচালনায় সহযোগিতা করেন সহ মশিউর রহমান মজুমদার, ওমর ফারুক রিপন ও পলি শাহিনা
উদ্বোধনের পর শুরু হয় বিভিন্ন ইভেন্টে খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আর আড্ডা। মহিলাদের বালিশ খেলা আর এ প্রজন্মের শিশু-কিশোরদের দৌড় প্রতিযোগিতা ছিল আনন্দদায়ক। পার্কের লেকের পাড়ে মনোরম পরিবেশে বৃহত্তর লাকসামবাসীর কোলাহল আর আড্ডা প্রবাসী বৃহত্তর লাকসাসবাসীর মধ্যে ঐক্য, ভ্রাতৃত্ববোধ, সম্প্রীতি সৃষ্টি এক বিরল দৃষ্টান্ত সৃষ্টি হয়।
বনভোজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লাকসামের সন্তান বিশিষ্ট চিকিৎসক ও রাজনীতিবিদ ডা: মজিবুর রহমান মজুমদার। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ, বাংলাদেশ পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক রফিকুজ্জামান, বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা: খোরশেদ আলম মজুমদার, বাংলাদেশ সোসাইটির সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুর রহিম হাওলাদার, সহ সভাপতি আব্দুল খালেক খায়ের, অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, স্কুল ও শিক্ষা সম্পাদক আহসান হাবিব, কার্যকরী সদস্য সাদী মিন্টু, বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির সাবেক সভাপতি হাজী আব্দুল মতিন, সাবেক সভাপতি ও বাংলাদেশ সোসাইটির কার্যকরী সদস্য আজাদ বাকের, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক কার্যকরী সদস্য সিরাজুল হক জামাল, কুমিল্লা জিলা সমিতি সাবেক সভাপতি ও বর্তমান প্রধান উপদেষ্টা মনির হোসেন, বিশিষ্ট রিয়েলেটর মঈনুল ইসলাম, নিউকার্ক ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামিলির সভাপতি আব্দুল মান্নান, সিনিয়র সহ সভাপতি মনির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক দুলাল মিয়া, সোনাগাজী সমিতির সাবেক সভাপতি আব্দুল হাদী, মালিক চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বদিউল আলম, শাহজাহান সিরাজী, কমিউনটি লিডার ম্যানাজার শাহ আলম, ইমাম উদ্দিন সেলিম, ভিক্টোরিয়া গ্রোসারী মালিক শাহ আলম, মোহাম্মদ মাসুদ, ইঞ্জিনিয়ার ফরিদ হোসেন, ইঞ্জিনিয়ার নূর আহমেদ, ক্যামিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ রিপনসহ আরো অনেকে। আরো উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র সফররত লাকসামের কৃতিসন্তান কাদরা মৌলভী সাহেবের ছোট ছেলে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হুমায়ন কবির, চট্টগ্রাম অগ্রনী বাংকের ডিজিএম ফজলুল করীম। তাদের উপস্থিতিতে বনভোজন আরো আনন্দময় হয়ে উঠে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা: মজিবুর রহমান মজুমদার বলেন, প্রবাসে বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্ম ও মূলধারায় আমাদের কৃষ্টি-কালচারকে তুলে ধরাই এ সংগঠনের উদ্দেশ্য। বনভোজনকে ঘিরে বৃহত্তর লাকসামবাসীর মধ্যে যে প্রাণের জোয়ার সৃষ্টি হয়েছে তা ধরে রাখা আমাদের প্রয়োজন। তিনি সংগঠনের কল্যাণে সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।
এরই মধ্যে সময় পুড়িয়ে আসে। পড়ন্ত বিকেল ছিল সংক্ষিপ্ত আলোচনা ও বিভিন্ন ইভেন্টে অংশগ্রহনকারীদের পুরস্কার প্রদানের পালা। বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বনভোজনের আমন্ত্রিত অতিথিরা। রাফেল ড্রতে ১ম পুরষ্কার ছিল, নিউইয়র্ক-ঢাকা বিমান টিকেট, ২য় পুরষ্কার আইপেড (আপেল), ৩য় পুরষ্কার, ল্যাপটপ, ৪র্থ ও ৫ম পুরষ্কার ৩২ ইঞ্চি টিভি, ৬ষ্ঠ পুরষ্কার, মাইক্রোওভেন এবং ৭ম পুরষ্কার স্ট্যান ফ্যান।
বনভোজনের সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন সাইফুল আলম শাহীন, চেয়ারম্যান আবু তাহের, মাষ্টার মীর হোসেন ভূইঁয়া, হুমায়ন কবির শাহীন, ইমরান খান, আশ্রাফুল আলম জাকির, মঞ্জুর রহমান মানিক, জামশেদ আহমেদ, আব্দুর রহমান দাউদ, গাজী শামীমুল লতিফ, মহিবুল্লাহ, নাদিয়া চৌধুরী, মোহাম্মদ মানিক, শরীফ উদ্দিন, নজির আহমেদ, এরশাদ উল্লাহ, সুষমা চন্দ্র সিংহ, আব্দুল জলিলসহ আরো অনেকে। সবশেষে সভাপতি আবুল কালাম ভূইঁয়া বৃহত্তর লাকসামবাসীর মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরীর লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান জানিয়ে বনভোজনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

0 Comments

Leave a Comment

সব খবর (সব প্রকাশিত)

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন। ধন্যবাদ।