Dec 11, 2017

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : ‘ম্যাডামের কাছে আমার কিছুই চাওয়ার নেই। শহীদ জিয়ার আদর্শের সৈনিক হিসেবে গত দুই দশক যাবত এই যুক্তরাষ্ট্রে যে শ্রম, মেধা ও অর্থের বিনিয়োগ ঘটেছি, তার মূল্যায়ন কীভাবে হবে, তা ম্যাডাম এবং বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের অজানা থাকার কথা নয়’-এমন অভিব্যক্তি পোষণ করেছেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও তারেক পরিষদ আন্তর্জাতিক কমিটির চেয়ারপার্সন আকতার হোসেন বাদল।

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি নেতা আকতার হোসেন বাদল। ছবি-এনআরবি নিউজ।

বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া লন্ডনে আসার পর অনেকেই নানাভাবে দেন-দরবার করছেন তার সাথে একান্তভাবে সাক্ষাতের জন্যে। ৪/৫ খন্ডে বিভক্ত যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির কোন কোন পর্যায়েও তেমন তৎপরতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। তারই পরিপ্রেক্ষিতে এ সংবাদদাতার কথা হয় বিএনপির তরুন এই নেতা ও মূলধারার রাজনীতিতে সক্রিয় আকতার হোসেন বাদলের সাথে। বিএনপির পক্ষে তিনি বেশ ক’বছর ধরেই কংগ্রেসে নিরব-লবিংয়ে নিয়োজিত রয়েছেন। এজন্যে প্রচুর অর্থও ব্যয় করে থাকেন তিনি।
বাদল বলেন, ১৯৮৮ সাল থেকেই যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাংগঠনিক কাঠামোতে সক্রিয় রয়েছি। ১/১১ আমলে তারেক রহমানকে গ্রেফতারের দিনই নিউইয়র্কে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে গঠন করি ‘তারেক মুক্তি পরিষদ।’ মার্কিন কংগ্রেস, জাতিসংঘ এবং মানবাধিকার সংস্থায় লাগাতার লবিং চালিয়েছি তারেক রহমানের মুক্তি এবং বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের জন্যে। তারেক রহমান মুক্তি পাবার পরদিনই সেই সংগঠনের নাম পাল্টিয়ে ‘ তারেক পরিষদ আন্তর্জাতিক কমিটি’ করেছি। এখনও কংগ্রেসে লবিং অব্যাহত রেখেছে এই সংগঠন।
বাদল বলেন, ‘আমার সংগঠনের কার্যক্রম সম্পর্কে ম্যাডামসহ বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের সকলেই জানেন। তাই লন্ডনে দেন-দরবারের প্রয়োজন বোধ করছি না। আমার কিছুই চাওয়ার নেই। আমি শুধু প্রবাসের অভিজ্ঞতায় আমার জন্মভ’মি চাঁদপুরের শাহরাস্তি ও হাজিগঞ্জ এলাকার মানুষের কল্যাণের সুযোগ চাই। সামনের নির্বাচনে বিএনপি থেকে এই আসনের মনোনয়ন পেলেই আমি ধন্য। আর সেই ঘটনাকে বাংলাদেশের ইতিহাসে স্মরণীয় করে রাখতে এলাকার উন্নয়নে সততা আর নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাবো।’
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির ত্যাগী নেতাদের অন্যতম অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন, গিয়াস আহমেদ, আলহাজ্ব সোলায়মান ভূইয়া, মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল, পারভেজ সাজ্জাদও নিজ নিজ এলাকা থেকে বিএনপির নমিনেশন প্রত্যাশা করছেন বলে জানা গেছে। তারাও প্রবাসের অভিজ্ঞতায় বাংলাদেশের কল্যাণে কাজে আগ্রহী।
‘বেগম জিয়া চিকিৎসার পাশাপাশি লন্ডনে তার পুত্র-পুত্রবধূ, নাতি-নাতনিদের সাথে সময় কাটাচ্ছেন। অথচ আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই তাকে উদ্দেশ্য করে এমন সব মন্তব্য করছেন, যা ভদ্রতার সীমাকেও ছাড়িয়ে যাচ্ছে’-এমন অভিযোগ করে বাদল বলেন, ‘৩ বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীর সম্মান রক্ষায় সকলেরই সজাগ থাকা উচিত। কারণ, ক্ষমতায় কেউই চিরদিন থাকতে পারেনি।’

 

 

3 Comments

একজন মুক্তিযোদ্ধা August 3, 2017 at 9:50 am

ম্যাডাম ক্ষমতায় আরোহন করে দেশে যেতে দিলেই হবে আর কিছুই চাই না। তখন আমাদের পাহাড় আমরাই গড়ে নেব ।

সাঈদ, মুক্তিযোদ্ধা বিমানসেনা August 3, 2017 at 12:48 pm

“ম্যাডামের কাছে আমার কিছুই চাওয়ার নেই। শহীদ জিয়ার আদর্শের সৈনিক হিসেবে গত দুই দশক যাবত এই যুক্তরাষ্ট্রে যে শ্রম, মেধা ও অর্থের বিনিয়োগ ঘটেছি, তার মূল্যায়ন কীভাবে হবে, তা ম্যাডাম এবং বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের অজানা থাকার কথা নয়’-এমন অভিব্যক্তি পোষণ করেছেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও তারেক পরিষদ আন্তর্জাতিক কমিটির চেয়ারপার্সন আকতার হোসেন বাদল” ম্যাডাম ক্কমতায় যাবেন এবং সেই দেশ ত্যাগী দুশমনদেরকে দেশে নিয়ে যাবে সেই আশায় আছেন? স্বপ্নেও ভাববেন না। কারন আপনার নেত্রীর পেছনের ইতিহাস আমরা জানি, দেশের লোক জেনে গেছেন। আপনি নিশ্চয়ই ভুলে যাননি যে আপনার নেত্রী ৭১ সনে কোথায় ছিলেন, স্বামীর সাথে ভারতে না গিয়ে সেনানিবাসে এবং পাক অফিসার্স মেসকেই তিনি বেছে নিয়েছিলেন নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে। তাছাড়াও ৭১ এর পরাজিত শক্তি ও তাদের দালালদের অর্থ ও সহায়তায় প্রধান মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার পর প্রথমেই কৃতজ্ঞতা জানাতে সফরে গিয়েছিলেন সেই দেশে যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে আমরা অর্জন করেছিলাম আমাদের স্বাধীনতা এবং সেখানে গিয়ে সেই পরাজিত জেনারেল রাও, নিয়াজী প্রভৃতি অফিসারদের সাথে একান্তে সাক্ষাতও করেছিলেন। যদি এ সব না জানা থাকে তবে একটু পেছনে তাকিয়ে দেখুন, জানতে পারবেন। এই সব খবর এখন বাংলার জনগন জানে কারন তারা এখন অনেক বেশী সচেতন এবং আমাদের বর্তমান জেনারেশন অনেক বেশী সজাগ এবং জ্ঞানী। সুতরাং আশায় বুক বাঁধবেন না, আপনার দলের অবস্থান হবে বংগোপসাগরের অতল তলে।

tuku August 4, 2017 at 12:20 am

khomotay gelei holo .desh kabo ebar.
khamba core ki kore nijeke calay?oto kaj korena,

Leave a Comment

সব খবর (সব প্রকাশিত)

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন। ধন্যবাদ।