Nov 22, 2017

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : যুক্তরাষ্ট্রে আসবে এমন সকল ফ্লাইটের যাত্রীদের বিশেষ তল্লাশী/জিজ্ঞাসাবাদের বিধি জারি হয়েছে। মার্কিন নাগরিকেরাও এ বিধির আওতায় এসেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের যে কোন এয়ারপোর্টে অবতরণের আগের এয়ারপোর্টে উড্ডয়নের আগে সকল যাত্রীকে বিশেষভাবে জিজ্ঞাসাবাদ এবং তার সকল ব্যাক-গ্রাউন্ড যাচাই করা হবে। পাসপোর্ট, ভিসা পরীক্ষা করা হবে। অর্থাৎ মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া, এশিয়া, আফ্রিকার যে এয়ারপোর্ট থেকে ফ্লাইট যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেবে, সেখানেই চালানো হবে এই তল্লাশী। ২৫ অক্টোবর বুধবার মার্কিন প্রশাসন এই সার্কুলার জারি করেছে এবং অবিলম্বে তা কার্যকর বলে গণ্য হবে। উল্লেখ্য, প্রতিদিন ২১০০টি আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বিভিন্ন দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন এয়ারপোর্টে অবতরণ করছে। আরো উল্লেখ্য, এর আগে ট্রাম্প প্রশাসন জারিকৃত এক বিধি অনুযায়ী, মধ্যপ্রাচ্যের ৮টি এবং ইউরোপের দুটি এয়ারপোর্ট থেকে সে সব দেশের এয়ারলাইন্সের যাত্রীদের জন্যে হ্যান্ডব্যাগে ল্যাপটপ নিষিদ্ধ করা হয়েছিল ১২০ দিনের জন্যে। সেই নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ সমাপ্তির দিনেই সকল যাত্রীর জন্যে নয়া এ বিধি যুক্তরাষ্ট্রে আসতে আগ্রহী ব্যবসায়ী, ট্যুরিস্টদের শংকায় ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে। এরফলে সংকট দেখা দেবে ব্যবসা-বাণিজ্যে-এমন আশংকাও করা হচ্ছে।
আমিরাত, ইত্তেহাদ, কুয়েত, কাতার, সউদি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ এই নির্দেশ কার্যকর করার অংশ হিসেবে জেএফকে, লসএঞ্জেলেস, ডালাস প্রভৃতি এয়ারপোর্টের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়াও আগেই ফ্লাইটের সকল যাত্রীকে বিশেষ একটি ফরম দেয়া হবে। সেখানে উল্লেখ করতে হবে যাবতীয় তথ্য। কী কী মাল বহন করছেন, কী জন্যে যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছেন বা কোথায় থেকে ফিরছেন ইত্যাদি জানাতে হবে। এরপর নিরাপত্তা রক্ষীরাও যাত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদ এবং মালামাল পরীক্ষা করবেন। পাসপোর্ট/ভিসা পরীক্ষা করা হবে। খতিয়ে দেখা হবে যাত্রীর ব্যাকগ্রাউন্ড।
যুক্তরাষ্ট্রের পরিবহন নিরাপত্তা প্রশাসন (টিএসএ) এর মুখপাত্র লিসা ফার্বস্টাইন এ প্রসঙ্গে বুধবার গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘নিরাপত্তার এ বিধি সকল ব্যক্তি, আন্তর্জাতিক যাত্রী, ইউএস সিটিজেন, ট্যুরিস্ট, ব্যবসায়ী, ক’টনীতিক-সকলকেই মান্য করতে হবে। এই বিধি মেনে চলতে হবে সকল ফ্লাইটকে।’
লিসা ফার্বস্টাইন উল্লেখ করেন, যাত্রীর কাছে থাকা ইলেক্ট্রনিক ডিভাইসকে বিশেষভাবে খতিয়ে দেখা হবে। বোর্ডিং পাস সংগ্রহের পর সিকিউরিটি চেক পয়েন্ট অতিক্রম করার পরই নয়া এ বিধি অনুযায়ী যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। অর্থাৎ প্রচলিত ব্যবস্থার অতিরিক্ত হিসেবে বিবেচিত হবে। এজন্যে কিছুটা সময় লাগবে। সামগ্রিক নিরাপত্তার স্বার্থে সকলকে ধৈর্য ধারণ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।’
দুবাইভিত্তিক আমিরাত এয়ার লাইন্সের যাত্রীদের কাছে এ বিধির আলোকে বিবৃতি প্রেরণের পরই তা জানাজানি হয়। আমিরাত তার যাত্রীদের সজাগ করেছে এবং এই বিধি প্রতিপালনে আন্তরিক সহায়তা চেয়েছে। এজন্যে প্রত্যেককে অতিরিক্ত সময় হাতে নিয়ে এয়ারপোর্টে আসার পরামর্শও দেয়া হয়েছে আমিরাতের পক্ষ থেকে।
হংকংভিত্তিক ক্যাথে প্যাসিফিক এয়ারওয়েজের বিবৃতিতে বুধবার বলা হয়েছে যে, লাগেজ ওজনকরাসহ সিকিউরিটি স্ক্রীনিংয়ের আগের রীতি বাতিল হয়ে গেছে। এখন থেকে সকলকেই বিশেষ তল্লাসী ও জিজ্ঞাসাবাদের মধ্য দিয়ে বোডির্ং পাস সংগ্রহ করতে হবে। যাদের কোন লাগেজ থাকবে না, তাদেরকেও জিজ্ঞাসাবাদের সম্মুখীন হতে হবে।
যুক্তরাষ্ট্রের এয়ারলাইন্স ডেল্টা এয়ার লাইন্স ও তাদের যাত্রীদের জানিয়ে দিয়েছে, নির্দ্ধারিত সময়ের ৩ ঘন্টা আগে এয়ারপোর্টে আসার জন্যে। নয়া বিধি অনুসরণের জন্যে অতিরিক্ত সময় হাতে রাখার পরামর্শ দিয়েছে ডেল্টা।
বিশ্বের ২৭৫টি এয়ার লাইন্সের প্রতিনিধিত্বকারি ‘দ্য ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্র্যান্সপোর্ট এসোসিয়েশন’কেও মার্কিন প্রশাসন থেকে চিঠি দেয়া হয়েছে এই বিধি অনুযায়ী সবকিছুতে সহায়তার জন্যে।

0 Comments

Leave a Comment

সব খবর (সব প্রকাশিত)

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন। ধন্যবাদ।