Nov 22, 2017


আকবর হোসাইন আটলান্টিক সিটি থেকে: দীর্ঘ চার বছর পর আটলান্টিক সিটিতে বসবাসরত বাংলাদেশীরা আবারও প্রমান করল বর্তমানে আটলান্টিক সিটির যে কোন নির্বাচনে বাংলাদেশীদের সহযোগিতা ছাড়া নির্বাচিত হওয়া সম্ভব নয়।জাতিগতভাবে এবং ইমিগ্রান্ট হওয়ার কারনে স্বভাবতই বাংলাদেশীরা ডেমোক্রেটিক পার্টির সাথে সম্পৃক্ত। কিন্তু চার বছর পূর্বে ডেমোক্রেটিক পার্টির মেয়রকে সহযোগিতা না করে বাংলাদেশীরা সাপোর্ট দিয়েছিল এইবারের পরাজিত মেয়র রিপাবলিকান দলীয় মেয়র প্রার্থী ডন গার্ডিয়ানকে। উন্নয়ন কাজে যথেষ্ঠ ভূমিকা রাখলেও বিভিন্ন ইস্যুতে বিরাগভাজন হয়েছিলেন সিটির অধিকাংশ বাংলাদেশীর। বৃহত্তর জনগোষ্টিকে বাদ দিয়ে বিশেষ গোষ্টির সাথে সংখ্যতা যে কতটুকু ক্ষতির কারন হতে পারে মেয়র গার্ডিয়েনের পরাজয় তারই প্রমান। এইবারের আটলান্টিক সিটির নির্বাচন দেখে মনে হয়েছিল বাংলাদেশের দুইটি বড় দলের নির্বাচন হচ্ছে আটলান্টিক সিটিতে। দুইটি দলের অধিকাংশ নেতাকর্মীরা রাত দিন ক্যাম্পেইন করেছেন বর্তমান মেয়র গিলিয়ামের জন্য। নির্বাচিত হওয়ার পর নির্বাচিত মেয়র ইমিগ্রান্ট কমিউনিটি তথা বাংলাদেশীদের সহযোগিতার কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন।তিনি বর্তমান মেয়র ডন গার্ডিয়ানের ছেয়ে ১% ভোট বেশী পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। ডেমোক্রেট দলের বাংলাদেশী কো-অর্ডিনেটর এবং এসাল সভাপতি ফারুক হোসেন, ডেমোক্রেট নেতা এবং বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব সাউথজার্সীর সভাপতি জহিরুল ইসলাম, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আটলন্টিক কাউন্টির সভাপতি সেলিম সুলতান, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব সাউথজার্সীর ট্রাষ্টিবোর্ড চেয়ারম্যান আবদুর রফিক, মোঃ হোসেন লিটু,বিপ্লব দেব, সুমন মজুমদার, মাহার উদ্দিন খোকন, আটলান্টিক সিটি বাংলাদেশী বিজনেসম্যান লিটন, কমিউনিটি নেতা সৈয়দ মোঃ কাউছার, ফেরদৌস, টফি এবং সোহেলসহ অন্যান্য বাংলাদেশীরা ফ্রাঙ্ক এম. গিলিয়ামের জয়ের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রেখেছেন।

0 Comments

Leave a Comment

সব খবর (সব প্রকাশিত)

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন। ধন্যবাদ।