Jan 16, 2018

নিউইয়র্ক : ব্রুকলীন বিএনপির অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন আলহাজ্ব আব্দুল লতিফ সম্রাট। ছবি-এনআরবি নিউজ।

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : ‘মধ্যপ্রাচ্যে জিয়া পরিবারের কোন সম্পদের অস্তিত্ব নেই। সামনের নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়ার ইমেজকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই এমন আজগুবি তথ্য প্রচার করছে ক্ষমতাসীনরা। এমন অপপ্রচারের বিরুদ্ধে প্রবাসীদেরকেও রুখে দাঁড়াতে হবে’-এমন আহবান জানান যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক প্রধান সমন্বয়কারি আলহাজ্ব আব্দুল লতিফ সম্রাট।
১১ ডিসেম্বর সোমবার রাতে নিউইয়র্ক সিটির ব্রুকলীন বিএনপির উদ্যোগে ‘বিজয় দিবস’ উপলক্ষে বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে খোলামেলা আলোচনা-সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আব্দুল লতিফ স¤্রাট আরো বলেন, ‘আবারো ভোটারবিহীন নির্বাচনের চেষ্টা চালাচ্ছে আওয়ামী-বাকশালীরা। কিন্তু বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদে উজ্জীবিত প্রবাসীরা তা হতে দেবে না। প্রবাস থেকেই ক্ষমতাসীন সরকারের অপকর্মের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক জনমত জোরদার করা হবে।’
ঊাংলাদেশী অধ্যুষিত চার্চ-ম্যাকডোনাল্ডে গ্রীণহাউজ রেস্টুরেন্টের এ আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন হোস্ট সংগঠনের সভাপতি আনোয়ার হোসেন এবং সভা পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গির সোহরাওয়ার্দি।
সংগঠনের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নূরনবী কর্তৃক পবিত্র কোরআন থেকে পাঠের পর ব্রুকলীন বিএনপির উপদেষ্টা মাওলানা আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এসময় খালেদা জিয়া এবং তারেক রহমানের সুস্বাস্থ্য কামনাও করা হয়।
অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদক গিয়াস আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল, যুক্তরাষ্ট্র মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি আলহাজ্ব বাবরউদ্দিন, যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সভাপতি আলহাজ্ব আবু তাহের, যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক সম্পাদক এম এ বাতিন, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম জনি, ব্রুকলীন বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি হুমায়ূন কবীর, সন্দ্বীপ উপজেলা জাতীয়তাবাদি ফোরামের সভাপতি গোলাম মোহাম্মদ এবং সেক্রেটারি এস এম ফেরদৌস, বিএনপি নেতা মার্শাল মুরাদ প্রমুখ।
গিয়াস আহমেদ বলেছেন, ‘অপকর্মের প্লালা অনেক ভারী হওয়ায় শেখ হাসিনা এবং তার সাঙ্গপাঙ্গরা বিএনপির বিরুদ্ধে লাগাতার অপপ্রচার শুরু করেছে। কিন্তু কোনটিই ভোটের হিসাবে হেরফের করতে পারবে না।’
মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল বলেন, ‘সামনের নির্বাচনে বিএনপি-জোটের বিজয় নিশ্চিতকল্পে নিজ নিজ এলাকার সাথে এখন থেকেই যোগাযোগ বাড়াতে হবে।’
আলহাজ্ব বাবরউদ্দিন বলেন, ‘১/১১ পরবর্তী সময়ের তথাকথিত কেয়ারটেকার সরকারের বিরুদ্ধে যে আন্দোলন রচিত হয়েছিল এই নিউইয়র্ক থেকে। ঠিক তারই পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে শেখ হাসিনার সরকারকেও হঠাতে হবে গণতান্ত্রিক পন্থায়।’
এম এ বাতিন বলেন, ‘বাংলাদেশকে গণতন্ত্রে প্রত্যাবর্তনে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে নতুন সরকার গঠনের বিকল্প নেই। এবারের বিজয় দিবসে সে সংকল্পই গ্রহণ করতে হবে প্রতিটি প্রবাসীকে।’
দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া সত্বেও অনুষ্ঠানে বিপুলসংখ্যক প্রবাসীর সমাগম ঘটে।

 

2 Comments

সাঈদ, মুক্তিযোদ্ধা বিমানসেনা December 12, 2017 at 7:15 pm

—— যুক্তরাষ্ট্র মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি আলহাজ্ব বাবরউদ্দিন——– যে দলের আগে/পিছে, ডানে/বামে রাজাকারদের উপস্থিতি তাদের কোনো অধিকার নেই মুক্তিযোদ্ধা দাবী করার। ১৯৭১ সনে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে জাতিসংঘে গিয়ে পাকিস্তান সরকারের পক্ষে লবিং করেছিলেন তাদেরকে এবং তাদের বংশধরদেরকেও এখানে দেখা যাচ্ছে। ঘৃনা লাগছে এদেরকে দেকতে। ১৯৭১ সনে আমরা মুক্তিযোদ্ধারা এদেরকে পাইনি বলেই আজ এভাবে গলা ফাটিয়ে কথা বলতে পারছেন। তবে সময় আসছে আর এভাবে গলাবাজি করতে পারবেন না।

একজন বাংগালী মুক্তিযোদ্ধা December 13, 2017 at 6:23 pm

জিয়া পরিবারের জন্য এত দরদ কেন? ৭১ এর পাকি দালালদেরকে বাংলার রাজনীতি করার সুযোগ দিয়েছিল বলে? যে দালালেরা স্বাধীনতা যুদ্ধের বিরুদ্ধে ইয়াহিয়া খানের পক্ষে জাতিসংঘে লবিং করতে গিয়েছিল তাদের গাড়ীতে আমার দেশের পতাকা তুলে দিয়েছিল বলে? জিয়ার মন্ত্রীসভায় সেই একাত্তরের ঘৃন্য দালালদেরকে বাংলার বুকে প্রতিষ্ঠিত যিনি করতে পারেন তাকে কি মুক্তিযোদ্ধা বলার অধিকার কারও আছে? সেই দালালদের দালালের প্রতি ঘৃনা ছাড়া আর কিছু থাকা কি আমাদের উচিত?

Leave a Comment

বিজ্ঞাপন

পাঠকের মন্তব্য

বিজ্ঞাপন

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন।
ধন্যবাদ।

বিজ্ঞাপন