Jan 17, 2018

১৬ ডিসেম্বর ২০১৬, বাংলাদেশের ৪৭তম ‘মহান বিজয় দিবস’ উদযাপন উপলক্ষে, হেগস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস আয়োজিত অনুষ্ঠানে-যোগদান করেছেন, নেদারল্যান্ড(হল্যান্ড) আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান শুরুর পূর্বে সকলের উপস্থিতিতে-দূতাবাসের মান্যবর রাষ্ট্র্রদূত জনাব শেখ মোহাম্মদ বেলাল জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। এরপর, কর্তৃপক্ষ উক্ত অনুষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু করেন।
অনুষ্ঠানে-মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের সকল শহীদদের সম্মানে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এবং ‘মহান বিজয় দিবস’ উদযাপন উপলক্ষে, মহামান্য রাষ্ট্র্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র্রমন্ত্রী ও মাননীয় পররাষ্ট্র্র প্রতিমন্ত্রী প্রদত্ত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। এবং মহান বিজয় দিবসের তাৎপর্য বর্ণনা করে, গুরু্ত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন, দূতাবাসের মান্যবর রাষ্ট্র্রদূত জনাব শেখ মোহাম্মদ বেলাল।
উক্ত মহান বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে-অন্যান্যদের মাঝে আরও বক্তব্য রাখেনঃ নেদারল্যান্ড(হল্যান্ড) আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইমরান হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা জামান ও সাংগঠনিক সম্পাদক জয়নাল আবদীন প্রমুখ।
বক্তাগণ, বিনম্র শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করেছেন, ত্রিশ লক্ষ শহীদদের যাদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে, মহান ‘বিজয়’। শ্রদ্ধার সাথে-স্মরণ করেছেন, দু’লক্ষ মা-বোনদে’র যাদের মূল্যবান সম্ভ্রমের বিনিময়ে জাতি পরাধীনতার শৃংখল মুক্ত হয়েছে। শ্রদ্ধার সাথে-স্মরণ করেছেন, শহীদ বুদ্ধিজীবী এবং জীবিত, আহ্ত, পঙ্গু অসহায় হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধাদের যাদের ত্যাগের বিনিময়ে বাঙ্গালী জাতি পেয়েছে মহান ‘বিজয়’ ও স্বাধীনতার স্বাদ।
তারা, গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতাচিত্তে স্মরণ করেছেন, বিজয়ে’র মহানায়ক, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট বাঙ্গালী, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। যিনি ঐতিহাসিক ৭ মার্চ, তাঁর ‘বজ্রকণ্ঠে’ ঘোষণা করেছিলেন, এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। এবং তারা আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ, প্রথম প্রহরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। শুরু হয়-মহান মুক্তিযুদ্ধ। দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের পর, ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১, অর্জিত হয় বাঙ্গালী জাতির চুড়ান্ত বিজয়।
সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, ওই অনুষ্ঠানে-গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন, জাতীয় চারনেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, এইচ এম কামরুজ্জামান ও ক্যাপ্টেন মনসুর আলীকে। তারা বলেন, জাতীয় এই চারনেতাই বঙ্গবন্ধু’র অবর্তমানে (বঙ্গবন্ধু তখন কারাগারে বন্দী ছিলেন) মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। তারা, মহানমুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, চট্রগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এবং চট্রগ্রাম আওয়ামী লীগের সফল সভাপতি, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, চট্টলবীর এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে-গভীর শোক প্রকাশ করেন। বাংলাদেশ সরকারের সদ্য প্রয়াত পানিসম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশেনের মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতেও-তারা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
বক্তারা তাদের বক্তব্যে আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু’র জন্ম না হলে, দূতাবাস হতোনা এবং এখানে মাথা উচু করে দাড়িয়ে কথা বলার সুযোগ আমাদের কখনও হতো না। নতুন প্রজন্মদের প্রতি আহবান জানিয়ে তারা বলেন, আপনারা ইতিহাস পড়ুন। বঙ্গবন্ধু’ কে ছিলেন, তা আপনাদের অবশ্যই জানতে হবে। বঙ্গবন্ধু’ তার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে যেতে পারেননি। কিন্তু-তাঁর সুযোগ্য কন্যা, তিন বারের সফল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তাঁর দক্ষ নেতৃত্বে দেশকে নিয়ে গেছেন উন্নয়নের এক ‘মহাসড়কে’। এবং বাংলাদেশকে বিশ্বে উন্নয়নের ‘রোল মডেল’ হিসেবেও পরিচিতি লাভ করতেও তিনি সক্ষম হয়েছেন।
বক্তারা বলেন, মহান বিজয় দিবসে আমাদের শপথ হোক, মহান মুক্তিযোদ্ধের চেতনা সমুন্নত রাখবো, রাজাকারমুক্ত
বঙ্গবন্ধু’র স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরও শক্তিশালী করার পাশাপাশি আগামী জাতীয় সংসদের নির্বাচনেও তাঁকে ‘বিজয়ী’ করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যাবো।
দূতাবাস আয়োজিত মহান বিজয় দিবসের উক্ত অনুষ্ঠানে-অন্যান্যদের মাঝে আরও উপস্থিত ছিলেনঃ নেদারল্যান্ড(হল্যান্ড) আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত-সভাপতি জনাব এমদাদ হোসেন, সহ-সভাপতি আবরার হোসেন শামীম, উপদেষ্ঠা পরিষদের সদস্য জনাব মতিউর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন, কার্যনির্বাহী সংসদে’র সদস্য আলাউদ্দিন মোল্লা ও কামাল হোসেনসহ আরও অনেকে এবং বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাঙ্গালীগণ।

0 Comments

Leave a Comment

বিজ্ঞাপন

পাঠকের মন্তব্য

বিজ্ঞাপন

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন।
ধন্যবাদ।

বিজ্ঞাপন