Feb 24, 2018

নিউইয়র্ক : জিয়াউর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে নিউইয়র্কের সভামঞ্চে নেতৃবৃন্দ। ছবি-এনআরবি নিউজ।

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : ‘একদলীয় নির্বাচনের ষড়যন্ত্র জিয়ার সৈনিকেরা বুকের রক্ত দিতে প্রতিহত করবে’-এমন হুংকার দিয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদক গিয়াস আহমেদ। ‘৩ বারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এবং সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনীতিক তারেক রহমানকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণার যে কোন ষড়যন্ত্র প্রবাস থেকে প্রতিহত করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে’-আহবান গিয়াস আহমেদের।
বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান,প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮২তম জন্মদিন উপলক্ষে ২১ জানুয়ারি রোববার নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে মেজবান পার্টি হলের সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন গিয়াস আহমেদ। যুক্তরাষ্ট্র জাতীয়তাবাদি ফোরামের নেতা মাওলানা ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে এ সমাবেশে অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু, যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা এম এ বাতিন, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতা ফারুক হোসেন মজুমদার, যুদলের সেক্রেটারি আবু সাঈদ আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সভাপতি আলহাজ্ব আবু তাহের, ব্রুকলীন বিএনপির সভাপতি আনোয়ার হোসেন এবং সেক্রেটারি জাহাঙ্গির সোহরাওয়ার্দি, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রদলের সেক্রেটারি মাজহারুল ইসলাম জনি, আরাফাত রহমান কোকো স্মৃতি পরিষদের সভাপতি শাহাদৎ হোসেন রাজু, বিএনপি নেতা মার্শাল মুরাদ, মাকসুদ চৌধুরী, নূরল আমিন পলাশ, হেলালউদ্দিন, খলকুর রহমান প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, আরেকটি সাজানো নির্বাচনের প্রহসন দেখতে আগ্রহী নয় বাংলাদেশ। কেয়ারটেকার সরকারের অধীনে নির্বাচন দেখতে আগ্রহী আন্তর্জাতিক বন্ধুরাও। তেমন একটি নির্বাচনে সরকারকে বাধ্য করতে হবে এই প্রবাস থেকে দুর্বার আন্দোলনের মধ্য দিয়ে।
বক্তারা অভিযোগ করেন, গণতান্ত্রিক বিশ্ব অবাক বিস্ময়ে অবলোকন করছে শেখ হাসিনার স্বৈরাচারি আচরণ। এ অবস্থার অবসান ঘটাতে বিএনপির আদর্শে উজ্জীবিত সকলকে সোচ্চার হতে হবে। আন্ত:কলহ ভুলে পরস্পরের সহযোগী হয়ে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলনের শপথ নিতে হবে।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির কমিটি না হওয়া পর্যন্ত সকলকে একযোগে কাজ করার আহবান জানান জাতীয়তাবাদি ফোরামের নেতৃবৃন্দ।

 

5 Comments

মুক্তিযোদ্ধা বিমান সেনা January 23, 2018 at 7:23 pm

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান,প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮২তম জন্মদিন – জন্মদিন পালন করছেন খুব ভাল কথা। করতেই হবে কারন জিয়া নেই, সামরিক ইউনিফরম পরিহিতাবস্থায় অবৈধভাবে একটি রাজনৈতিক গঠন করেছিলেন যে দলের অস্থিত্ব নেই বললেই চলে। অতটুকু আছে তাও অচীরেই বিলুপ্ত হয়ে যাবে।

সাঈদ, মুক্তিযোদ্ধা January 24, 2018 at 6:32 am

Some faces who’s fore fathers were anti-liberation elements and killed so many freedom fighters and pro-liberation people???????

একজন বাংগালী মুক্তিযোদ্ধা January 26, 2018 at 7:04 am

হ্যাঁ, জিয়াউর রহমান যে সব দালালদেরকে বাংলার বুকে বসবাস ও রাজনীতি করার অধিকার দিয়েছিলেন তাদের বংশধরেরাই জিয়ার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাবার জন্যই এই জন্ম দিনের উতসব। যদি জিয়া সেই স্বাধীনতা বিরোধীদেরকে ক্ষমা করে না দিতেন তবে এই সব “কালোমুখ” বাংলার আকাশে দেখা যেত না।

একজন বাংগালী মুক্তিযোদ্ধা January 29, 2018 at 5:59 pm

এই সেই জিয়া সিনি ৭১ এর হায়েনাদের নেতাকে আমার দেশের প্রধান মন্ত্রী বানিয়েছিলেন। আমাদের জাতীয় পতাকা তার গাড়ীর শোভা বর্ধন করেছিল, সেই সাথে আরও অনেক গুলো হায়েনাকেই সেই সুযোগ দিয়েছিলেন ‘মুক্তিযোদ্ধা’ নাম ধারী ও তথাকথিত স্বাধীনতার ‘ঘোষক” এক জেনারেল যেই জেনারেলকে মুক্তিযোদ্ধা বলতেও আমার ঘৃনা হয়। কারন যদি কেহ ব্যক্তি পাক সেনা ও তাদের দোষড় রাজাকার, আল-বদরদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে থাকেন তবে তার পক্ষে শাহ আজিজ, সাকা/ফকা চৌঃ, আব্দুল আলীম প্রভৃতি হায়েনাদের গাড়ীতে স্বাধীন দেশের পতাকা উড়াবার অনুমতি দিতে পারে না। আমার মনে আছে, সেই তথাকথিক ‘স্বাধীনতার ঘোষক’ ১৯৭১ সনে ভারতে থাকাকালীন ২ বার জেনারেল ওসমানী কর্তৃক গৃহবন্দী হয়েছিলেন এবং বাংলাদেশ সরকারের তদানিন্তন প্রবাসী প্রধান মন্ত্রী তাজুদ্দিন আহমেদ ও মিজানুর রহমান চৌধুরী ওসমানী সাহেবকে অনুরোধ করে গৃহ বন্দী (সামরিক ভাষায় বলে ‘ক্লোজ এরেষ্ট’) অবস্থা থেকে মুক্ত করেছিলেন। ১৯৭৫ এর হৃদয় বিদারক ১৫ই আগষ্ট সেই ঘোষক সারা রাত উর্দী পরিহিত অবস্থায় সেনা সদরে ঘাতক ডালিক/ফারুক/রশীদদের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। কেন? সেই রহস্য আজও উদঘাটন করার চেষ্টা কেহ করেনি। তাছাড়া ১৯৭১ এর ২৩ মার্চ পাকিস্তান থেকে আনীত সমরাস্ত্র সোয়াত জাহাজ থেকে সেই মেজরই খালাস করার জন্য তৈরী হয়ে ঘাটে এলে বাংগালী সৈনিক ও অফিসারদের দ্বারা বাধা পেয়ে ২ দিনের জন্য কোনো এক গোপন স্থানে চলে গিয়েছিলেন তার প্রভুদের কাছ থেকে ব্রিফিং নেয়ার জন্য। তার পর ২৭ মার্চ কালুর ঘাট বেতার কেন্দ্রের কাছে রহস্যজনক ভাবে এসে উপস্থিত হয়েছিলেন। হান্নান সাহেবরা তাকে চা বাগান থেকে কুড়িয়ে এনে তাদের লেখা এক ঘোষনা পত্র পাঠ করিয়েছিলেন। কোথায় ছিলেন তিনি ঐ ২/৩ দিন? এই প্রশ্নের জবাব দিতে পারলেই তাদেরকে আরও উতসাহিত করবো এই জন্মদিন পালন করার জন্য।

একজন বাংগালী মুক্তিযোদ্ধা January 29, 2018 at 6:04 pm

এই সেই মুক্তিযোদ্ধা যিনি ৭১ এর হায়েনাদের নেতাকে আমার দেশের প্রধান মন্ত্রী বানিয়েছিলেন। আমাদের জাতীয় পতাকা সেই নেতার গাড়ীর শোভা বর্ধন করেছিল, সেই সাথে আরও অনেক গুলো হায়েনাকেই সেই সুযোগ দিয়েছিলেন ‘মুক্তিযোদ্ধা’ নাম ধারী ও তথাকথিত স্বাধীনতার ‘ঘোষক” এক জেনারেল যেই জেনারেলকে মুক্তিযোদ্ধা বলতেও আমার ঘৃনা হয়। কারন যদি কেহ ব্যক্তি পাক সেনা ও তাদের দোষড় রাজাকার, আল-বদরদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে থাকেন তবে তার পক্ষে শাহ আজিজ, সাকা/ফকা চৌঃ, আব্দুল আলীম প্রভৃতি হায়েনাদের গাড়ীতে স্বাধীন দেশের পতাকা উড়াবার অনুমতি দিতে পারে না। আমার মনে আছে, সেই তথাকথিক ‘স্বাধীনতার ঘোষক’ ১৯৭১ সনে ভারতে থাকাকালীন ২ বার জেনারেল ওসমানী কর্তৃক গৃহবন্দী হয়েছিলেন এবং বাংলাদেশ সরকারের তদানিন্তন প্রবাসী প্রধান মন্ত্রী তাজুদ্দিন আহমেদ ও মিজানুর রহমান চৌধুরী ওসমানী সাহেবকে অনুরোধ করে গৃহ বন্দী (সামরিক ভাষায় বলে ‘ক্লোজ এরেষ্ট’) অবস্থা থেকে মুক্ত করেছিলেন। ১৯৭৫ এর হৃদয় বিদারক ১৫ই আগষ্ট সেই ঘোষক সারা রাত উর্দী পরিহিত অবস্থায় সেনা সদরে ঘাতক ডালিক/ফারুক/রশীদদের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। কেন? সেই রহস্য আজও উদঘাটন করার চেষ্টা কেহ করেনি। তাছাড়া ১৯৭১ এর ২৩ মার্চ পাকিস্তান থেকে আনীত সমরাস্ত্র সোয়াত জাহাজ থেকে সেই মেজরই খালাস করার জন্য তৈরী হয়ে ঘাটে এলে বাংগালী সৈনিক ও অফিসারদের দ্বারা বাধা পেয়ে ২ দিনের জন্য কোনো এক গোপন স্থানে চলে গিয়েছিলেন তার প্রভুদের কাছ থেকে ব্রিফিং নেয়ার জন্য। তার পর ২৭ মার্চ কালুর ঘাট বেতার কেন্দ্রের কাছে রহস্যজনক ভাবে এসে উপস্থিত হয়েছিলেন। হান্নান সাহেবরা তাকে চা বাগান থেকে কুড়িয়ে এনে তাদের লেখা এক ঘোষনা পত্র পাঠ করিয়েছিলেন। কোথায় ছিলেন তিনি ঐ ২/৩ দিন? যদি আমার এবং প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের এই প্রশ্নের জবাব দিতে পারেন তবে আপনাদের এবং আমাদের হক থাকবে সেই জেনারেলের জন্মদিন পালন করার।

Leave a Comment

বিজ্ঞাপন

পাঠকের মন্তব্য

বিজ্ঞাপন

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন।
ধন্যবাদ।

বিজ্ঞাপন