Feb 24, 2018

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : যুক্তরাষ্ট্রের বহু পুরনো ‘চেইন ইমিগ্রেশন’ সিস্টেম বিলুপ্তির প্রস্তাব করলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। চেইন ইমিগ্রেশন তথা পারিবারিক কোটায় স্বামী/স্ত্রী, পুত্র-কন্যা, মা-বাবা, দাদাদাদি, নানা-নানী, খালা-খালু, মামা-মামীরা যুক্তরাষ্ট্রে আসার যে সুযোগ পাচ্ছেন তা রহিতের প্রস্তাব দিয়ে এর পরিবর্তে মেধা-দক্ষতাসম্পন্ন কর্মী ভিসা চালুর কথা বলেছেন। পারিবারিক কোটা শুধুমাত্র স্বামী-স্ত্রী এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক পুত্র-কন্যার মধ্যে সীমিত করার বিকল্প প্রস্তাব দিলেন। তার প্রস্তাব অনুযায়ী বন্ধ করা হবে ডিভি লটারি। কারণ, ডিভি লটারি এবং পারিবারিক কোটায় আগত কয়েকজন সাম্প্রতিক সময়ে বস্টন, নিউইয়র্ক, ফ্লোরিডা এবং ক্যালিফোর্নিয়ায় সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে।
একইসাথে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ১৮ লাখ তরুণ-তরুণীকে সিটিজেনশিপ দিতে চান। এরা শিশুকালে মা-বাবার সাথে যুক্তরাষ্ট্রে আসার পর এখনও গ্রীণকার্ড পাননি অর্থাৎ যুক্তরাষ্ট্রের আলো-বাতাসে বেড়ে উঠলেও বৈধতা পাননি। এদের মধ্যে যারা উচ্চ শিক্ষিত, কাজের উপযোগী, কোন অপরাধে লিপ্ত নন-এমন ড্রিমারকেই সিটিজেনশিপ প্রদান করতে আগ্রহী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।
অভিবাসনের ভঙ্গুর অবস্থা ঢেলে সাজানোর অভিপ্রায়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মেক্সিকো-যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তের দক্ষিণাঞ্চলে দেয়াল নির্মাণে আগ্রহী। কারণ, সীমান্তের দুর্গম পথ দিয়ে ক্রিমিনালরা যুক্তরাষ্ট্রে এসে অপকর্ম করছে। সন্ত্রাসীরাও ঢুকে পড়ছে যুক্তরাষ্ট্রে।
চেইন ইমিগ্রেশন সিস্টেমে ক্রুটি থাকায় মেধাভিত্তিক ভিসা সিস্টেম চালুর যুক্তি হিসেবে ট্রাম্প বলেছেন, যারা যুক্তরাষ্ট্রকে ভালবাসবে, আমেরিকানদের সম্মান জানাবে, সমাজ বিনির্মাণে অবদান রাখবে, সর্বোপরি আমেরিকাকে এগিয়ে নিতে কার্পণ্য করবে না-তাদেরকেই স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দেয়া উচিত। ট্রাম্প বলেন, গত ৩০ বছর ধরেই অভিবাসনের এহেন ভঙ্গুর অবস্থা ঢেলে সাজানোর কথা বলা হলেও প্রকৃত অর্থে তা কেউই করতে পারেনি। এখন আমি রিপাবলিকান এবং ডেমক্র্যাট উভয় পার্টির সাথে বৈঠক করে অতি সম্প্রতি কংগ্রেসে এ অভিবাসন-ব্যবস্থার সংস্কার সাধনের একটি বিল উথাপনে উদ্বুদ্ধ করেছি। আশা করছি শীঘ্র্রই এটি ভোটে গিয়ে পাশ হবে।
৩০ জানুয়ারি মঙ্গলবার রাত ১০টা ৩১ মিনিট পর্যন্ত এক ঘন্টা ২০ মিনিটের বক্তব্যে কংগ্রেসের উভয় কক্ষের প্রতি উদাত্ত আহবান জানিয়ে ট্রাম্প বলেন, আমেরিকার নিরাপত্তা ও গরিব আমেরিকানদের স্বার্থেই অভিবাসনের রিফর্ম বিল পাশ হবে বলে আশা রাখছি।
‘স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন’ ভাষণে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প গত এক বছরের বিভিন্ন সাফল্যের বর্ননার পাশাপাশি ভবিষ্যত পরিকল্পনার কথাও বলেছেন। যদিও ডেমক্র্যাটরা অনেকেই তা বর্জন করেছেন এবং নারী কংগ্রেসম্যানরা কালো পোশাক পরে ট্রাম্পের অ-আমেরিকান নীতির প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

0 Comments

Leave a Comment

বিজ্ঞাপন

পাঠকের মন্তব্য

বিজ্ঞাপন

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন।
ধন্যবাদ।

বিজ্ঞাপন