Feb 24, 2018

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ‘মীট দ্য প্রেস’। ছবি-এনআরবি নিউজ।

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : খালেদা জিয়ার মামলার রায় প্রদানের তারিখ ঘিরে আটলান্টিকের এপাড়েও পরস্পর বিরোধী কর্মসূচিতে প্রবাসীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ৫ ফেব্রুয়ারি জাতিসংঘের সামনে এবং ৭ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা থেকে রাতভর জ্যাকসন হাইটসে অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণার পরই যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগও প্রায় একই ধরনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান এ সংবাদদাতাকে বলেন, ‘বিএনপির ঘাড়ে সওয়ার হয়েছে জামাত-শিবিরের লোকজন। তারা নানাভাবে অপপ্রচারণা চালাচ্ছে। বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক মিত্রকে বিভ্রান্ত করার পাশাপাশি সহজ-সরল প্রবাসীদের কাছে উদ্ভট তথ্য প্রচারের চেষ্টা চালাচ্ছে। এহেন কর্মকান্ডকে মুজিব আদর্শে উজ্জীবিত প্রবাসীরা অবশ্যই শান্তিপূর্ণ উপায়ে প্রতিহত করবে।’
বিএনপির সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল লতিফ সম্রাট এ সংবাদদাতাকে বলেছেন, ‘আবারো এক দলীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের পথ সুগম করতে বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা প্রদানের জঘন্য চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ ধরনের আচরণকে প্রবাসীর া কখনোই মেনে নেবে না। একইসাথে আমরা জাতিসংঘসহ আমেরিকানদের বাংলাদেশের প্রকৃত চিত্র অবহিত করতে বিভিন্ন কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।’
বাংলাদেশে ৮ ফেব্রুয়ারির সাথে সঙ্গতি রেখে নিউইয়র্কে ৭ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা থেকেই জ্যাকসন হাইটসে পাশাপাশি স্থানে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। উভয় পক্ষ থেকেই বড় ধরনের শো-ডাউনের প্রস্তুতি চলছে। এবং বিষয়টি ইতিমধ্যেও সিটি প্রশাসন এবং পুলিশের গোচরেও আনা হয়েছে।
এদিকে, প্রচলিত রীতি অনুযায়ী সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে চার্জশিট প্রদানের পর বিচার চলছে বলে মার্কিন প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়কে অবহিত করেছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি। ‘বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ এবং এই মামলার বিচারে সরকারের ন্যূনতম হস্তক্ষেপ নেই বলেও অবহিত করেছেন সংশ্লিষ্ট সকলকে’-এ তথ্য জানান যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ।
এর আগে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির পক্ষ থেকে ওয়াশিংটন ডিসিতে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং ক্যাপিটল হিলে প্রদত্ত স্ম^ারকলিপিতে ‘বেগম খালেদা জিয়া রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।
১ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার রাতে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সংবাদ সম্মেলন থেকেও একই ধরনের অভিযোগ করা হয়েছে। ৩০ জানুয়ারি মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ‘মীট দ্য প্রেস’-এ উল্লেখ করা হয়েছে যে, এই প্রবাসে মিথ্যাচার চালালে তার দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে। কারণ, খালেদা জিয়ার বিচার হচ্ছে প্রচলিত আইন অনুযায়ী।

1 Comment

সাঈদ, মুক্তিযোদ্ধা বিমানসেনা February 3, 2018 at 2:19 pm

মুক্তিযুদ্ধের শেষভাগে পাক সরকারের সহায়তা নিয়ে অনেক দালাল স্বপরিবারে বাংলাদেশ ত্যাগ করেছিলেন কারন মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে মৃত্যু অথবা আদালতের মাধ্যমে বিচারের সন্মুখীন হওয়া। স্বাধীনতা অর্জনের পর তাদের মধ্য থেকে খুব কম সংখ্যকই দেশে ফিরেছিল। সেই দালালদের উত্তর সুরীরা অনেকেই নিউ ইয়র্কে আছেন এবং তারা চাচ্ছেন বাংলাদেশের রাজনৈতিক খেলাকে তাদের পক্ষে নিয়ে আবার দেশে ফিরে যাবেন এবং ওয়াহিদুজ্জামান খান/আব্দুল আলীম গংদের মত আবার রাজনীতির মাঠে বিচরন শুরু করবেন। তারাই এখানে সেখানে জড়ো হয়ে দেশের বিরুদ্ধে ও জনগনের সরকারের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। আসুন আমরা বিদেশে বসবাস্কারীরা তাদের ঐ পরিকল্পনাকে জ্যান্ত কবর দিয়ে দেই।

Leave a Comment

বিজ্ঞাপন

পাঠকের মন্তব্য

বিজ্ঞাপন

লক্ষ্য করুন

প্রবাসের আরো খবর কিংবা অন্য যে কোন খবর অথবা লেখালেখি ইত্যাদি খুঁজতে উপরে মেনুতে গিয়ে আপনার কাংখিত অংশে ক্লিক করুন। অথবা ‌উপরেরর মেনু'র সর্বডানে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনার খবর বা লেখার হেডিং এর একটি শব্দ ইউনিকোড ফন্টে টাইপ করে সার্চ আইকনে ক্লিক করুন।
ধন্যবাদ।

বিজ্ঞাপন